২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা জমাদিউস-সানি, ১৪৩৯ হিজরী

তাপমাত্রা নামতে পারে সর্বনিম্নতে!

নভেম্বর ২৮, ২০১৭, সময় ৯:১৩ অপরাহ্ণ

প্রকৃতিতে এখন মধ্য অগ্রহায়ণ। অগ্রহায়নের মাঝামাঝি সময়েই রাজধানীসহ সারা দেশে গুটি গুটি পায়ে আসতে শুরু করেছে শীতকাল। পৌষ-মাঘ মাস শুরুর আগে শহুরে দূষণের কারণে রাজধানীতে শীতের আমেজ না এলেও গ্রামাঞ্চলে শুরু হয়েছে হাড়-কাঁপানো শীত। তবে আবহাওয়াবিদরা বলছে, ধেয়ে আসছে তীব্র শীত। এবার ডিসেম্বরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে আসতে পারে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে আর মাঘে অর্থাৎ জানুয়ারিতে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এবার প্রকৃতিতে শীতকাল বিরাজ করবে মধ্য ডিসেম্বর থেকে সামনের বছরের মধ্য ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। ডিসেম্বর থেকেই শুরু হবে শৈত প্রবাহ। দুই মাসে সর্বোচ্চ চারটি মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্য প্রবাহের আশঙ্কা করছেন তারা। এরমধ্যে একটি তীব্র শৈত প্রবাহ সারা দেশের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ফলে বোঝাই যাচ্ছে, শীতের প্রস্তুতি নিতে হবে এখনই।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ আবহাওয়া বিষয়ক এক প্রতিবেদনে বলেছেন, ডিসেম্বর মাসে রাতের তাপমাত্রা ক্রমান্বয়ে কমে যাবে। ডিসেম্বরের শেষ দিকে অর্থাৎ পৌষের প্রথমার্ধে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে একটি বা দু’টি ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মৃদু অথবা ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মাঝারি শৈত্য প্রবাহ বয়ে যেতে পারে। ডিসেম্বরের রাতের শেষ ভাগ থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের উত্তরাঞ্চল ও নদ-নদী অববাহিকায় থাকবে মাঝারি বা ঘন কুয়াশা। হালকা অথবা মাঝারি কুয়াশা দেখা যেতে পারে সারা দেশে।

আবহাওয়া বিষয়ক ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, জানুয়ারি মাসে অর্থাৎ বাংলা মাঘ মাসের প্রাক্কালে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার একটি মাঝারি থেকে তীব্র শৈত্য প্রবাহ বয়ে যেতে পারে। কমপক্ষে দুইটি মৃদু থেকে মাঝারি মাত্রার শৈত্য প্রবাহের প্রকোপ দেখা দিতে পারে দেশের অন্যান্য জায়গায়।

জানুয়ারিতে ভোর রাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এবং নদ-নদীর অববাহিকায় মাঝারি অথবা ঘন কুয়াশা দেখা দিতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় বর্তমানে অবস্থানরত লঘুচাপটি ক্রমশ গুরুত্বহীন হয়ে পড়ছে। বলা হচ্ছে, মৌসুমি লঘুচাপটি বর্তমানে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগর এবং বর্ধিতাংশ উত্তরপূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত হচ্ছে।

এদিকে লঘু চাপের কারণে গত কয়েকদিন ধরে সন্ধ্যার পর রাজধানীসহ সারাদেশে বয়ে চলেছে মৃদু ঠাণ্ডা বাতাস। কমে এসেছে তাপমাত্রা। হিমেল হাওয়া সবচেয়ে বেশি বইছে উত্তরাঞ্চলে।

Comments

comments




error: Content is protected !!