১৯শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২রা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

প্রবাসীর স্ত্রী-ছেলে-মেয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার !!

ডিসেম্বর ২০, ২০১৭, সময় ১১:৫৩ অপরাহ্ণ

মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় দুই সন্তানসহ এক কাতার প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে স্ত্রী ও শিশু মেয়ের ঝুলন্ত লাশ ঘরের ভেতর থেকে এবং মেঝেতে পড়ে থাকা শিশু ছেলের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহতরা হলেন- কাতার প্রবাসী আকামত আলীর স্ত্রী মাজেদা বেগম (২৫), মেয়ে লাবনী বেগম (৫) ও ছেলে ফারুক আহমদ (৩)। নিহত মাজেদার বাবার বাড়ি কুলাউড়া উপজেলার সাদিপুর গ্রামে।

পুলিশ ও প্রতিবেশী সূত্রে জানা গেছে, কাতার প্রবাসী আকামত আলীর স্ত্রী প্রতিদিন নিজ বাড়ির পাশেই আরেকটি ঘর নির্মাণে মিস্ত্রিদের সাহায্য-সহযোগিতা করছিলেন। একইভাবে মঙ্গলবারও মিস্ত্রিদের সাহায্য করছিলেন। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে দিবাংশু নামে মিস্ত্রি মাজেদার ঘরে সিমেন্ট নিতে গিয়ে ঘরের দরজা বন্ধ দেখেন। অনেক ডাকাডাকি করে দীর্ঘক্ষণ সাড়া না পেয়ে দরজার ফাঁক দিয়ে মাজেদাসহ মেয়েকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান এবং লোকজনকে জানান।

খবর পেয়ে ওয়ার্ড মেম্বার মাসুক আহমদ ও আওয়ামী লীগ নেতা মোক্তার আলী পুলিশে খবর দেন। সন্ধ্যা ৬টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মা ও মেয়ের ঝুলন্ত মরদেহ ও মেঝে থেকে শিশুপুত্রের মৃতদেহ উদ্ধার করেন।

বড়লেখা থানার এসআই অমিতাভ দাস তালুকদার জানান, মা, মেয়ে ও শিশুপুত্রের মরদেহ মেঝে থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

১৭ বছর বয়সী এক ফিলিস্তিনি কিশোরীর চড় খেয়ে উন্মত্ত হয়ে পড়েছে দখলদার ইসরাইলি সেনারা।চড়ের প্রতিশোধ নিতে ইসরাইলি সেনারা মাসহ ওই কিশোরীকে এবং তার ২১ বছরের চাচাতো বোনকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে।

গত শুক্রবার জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা করার প্রতিবাদে পশ্চিম তীরে বিক্ষোভ করছিল ফিলিস্তিনিরা।এসময় ফিলিস্তিনের বিখ্যাত কিশোরী অ্যাক্টিভিস্ট আহেদ তামিমির পরিবারের এক সদস্যকে মাথায় গুলি করে ইসরাইলি সেনারা।এতে ক্ষোভে ফেটে পড়ে কিশোরী তামিমি। এ ঘটনার এক পর্যায়ে সে একজন দখলদার ইসরাইলি সেনাকে চড় দেয়।

এই দৃশ্য কেউ একজন মোবাইল ফোনের ক্যামেরার মাধ্যমে ভিডিও করে সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। যা দ্রুত ভাইরাল হয়ে যায়।এই ভিডিওকে ঘিরে ফিলিস্তিনি কিশোরীর বিরুদ্ধে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে উসকানি দেয় ইহুদিবাদী সংবাদমাধ্যমগুলো।এরপর মঙ্গলবার ও বুধবার উন্মত্ত হয়ে পড়ে ইসরাইলি সেনারা।

প্রথমে মঙ্গলবার গভীর রাতে তারা ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের উত্তর রামাল্লার নবী সালেহ গ্রাম থেকে তামিমি ও তার মাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এরপর বুধবার ফের হানা দিয়ে ইসরাইলি সেনারা নূর নাজি তামিমিকে গ্রেফতার করে।এ ঘটনায় ফিলিস্তিনিরা সামাজিকমাধ্যমে ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়েছেন। তাদের সাফ কথা, দখলদার ইসরাইলি সেনাদের প্রতিরোধ করার অধিকার রয়েছে ফিলিস্তিনিদের।

Comments

comments

আজকের সব খবর

error: Content is protected !!