১৯শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং, ৬ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২রা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

কাবিননামার জন্য পর্যটকদের হয়রানি, ট্যুরিস্ট পুলিশের বিবৃতি

ডিসেম্বর ২১, ২০১৭, সময় ১২:০০ পূর্বাহ্ণ

কক্সবাজার আমাদের দেশ বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটকস্থল। শুধু দেশি নয়, বিদেশি পর্যটকদেরও ভিড় জমে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘ কক্সবাজার বিচে। বিচকে অযাচিত হয়রানিমুক্ত রাখতে নিযুক্ত হয়েছেন ট্যুরিস্ট পুলিশ। নারী পর্যটকদের সুরক্ষায় আছে নারী ট্যুরিস্ট পুলিশের আলাদা এন্টি ইভ টিজিং টিম। পর্যটকদের যেকোনো প্রয়োজনে সাহায্য করতে সবসময়ই সৈকতে থাকছে তাদের টহল।

গত রবিবার কক্সবাজার লাবনী পয়েন্টে এক দম্পতিকে পড়তে হয় ট্যুরিস্ট পুলিশের জেরার মুখে। এএসআই মো. মাসুদসহ ৩ ট্যুরিস্ট পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। তারা উক্ত দম্পতিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন, দীর্ঘসময় ক্ষেপণ করেন, বিয়ের কাবিননামা দেখতে চান। কক্সবাজারের মতো আন্তর্জাতিক মানের একটি পর্যটকস্থলে এই ঘটনা সত্যিই দুঃখজনক।

ভুক্তভোগী দম্পতি এই ঘটনার প্রেক্ষিতে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।
পরবর্তীতে ‘ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার’ এর এএসপি মো. রায়হান কাজেমী জানান, সোমবার রাতে মো. মাসুদকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এ ঘটনা তদন্তে ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার ফজলে রাব্বীকে প্রধান করে দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। প্রতিশ্রুতি দেন, তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয় এই প্রতিষ্ঠানটির কাছ পর্যটকদের স্বার্থ সব কিছুর আগে বিবেচ্য। তাই এই তদন্ত কমিটি যদি ঘটনার সত্যতা খুঁজে পায় তাহলে অভিযুক্তদের বিন্দু মাত্র ছাড় দেয়া হবেনা।

সমুদ্র সৈকত এমন নিন্দনীয় কাজ করার জন্য গত রবিবার থেকে ট্যুরিস্ট পুলিশের নানা ধরণের সমালোচনা চলছিল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে দেয়া এই বিবৃতি আর এই ব্যাপারে নেয়া পদক্ষেপ ভ্রমণকারীদের মধ্যে স্বস্তি সঞ্চার করবে বলে আশা করা যায়। ট্যুরিস্ট পুলিশ যেভাবে পর্যটকদের নিরাপদ পরিবেশের প্রতিশ্রুতি আর নিরাপত্তা প্রদান করে আসছে তা সত্যি প্রশংসনীয়। এই বিবৃতিতে আবারো প্রমাণিত হল যে পর্যটকদের সাথেই আছেন ট্যুরিস্ট পুলিশ।

Comments

comments

আজকের সব খবর

error: Content is protected !!